শেয়ার মর্কেটে বিনিয়োগ করবেন? জেনে নিন কিভাবে।

আপনিও কি শেয়ার মার্কেটে (Share Market) টাকা খাটিয়ে মোটা টাকা এই করতে চান? বর্তমান সময়ে শেয়ার বাজারে নিবেশ প্রায় ৩৫ শতাংশ বেড়ে গেছে।তাহলে কি এটাই সঠিক সুযোগ শেয়ার মার্কেটে টাকা বিনিয়োগ করার? আপনি যদি চান তো মার্কেট এনালাইসিস করে যখন খুশি share market -এ টাকা ইনভেস্ট করতে পারেন। আসুন দেখে নেওয়া যাক তার পদ্ধতি কি এবং কি কি প্রয়োজন।

শেয়ার বাজারে টাকা বিনোয়োগ করার জন্য কি কি প্রয়োজন?

শেয়ার মার্কেটে টাকা বিনিয়গের জন্য আপনার অবসসই একটি ডিম্যাট একাউন্ট থাকতে হবে। ডিমটি একাউন্ট আপনারা দু রকম ভাবে পেতে পারেন প্রথমত আপনারা যে কোনো ডিসকাউন্ট ব্রোকারের ডিম্যাট একাউন্ট খুলতে পারেন অথবা আপনারা কিন্তু সেক্ষেত্রে আপনাদের চার্জ বেশি লাগতে পারে।তাই আমি আপনাদের সাজেস্ট করবো যেকোনো ডিসকাউন্ট ব্রোকারের ডিম্যাট একাউন্ট খুলতে। এক্ষেত্রে আপনারা Groww, Upstox, Zerodha যে কোনো একটি তে একাউন্ট খুলতে পারেন।আপনারা যদি নতুন হয়ে থাকেন তাহলে আমি আপনাদের সাজেস্ট করবো Groww তে একাউন্ট খুলতে কারণ এখানে কোনো মেইনটেন্যান্স চার্জ লাগেনা।এছাড়া আপনার কাছে প্যান কার্ড এবং Bank Account থাকা বাধ্যতামূলক।

কি ভাবে ডিম্যাট একাউন্ট খুলবেন?

এতে ডিম্যাট একাউন্ট খোলার জন্য সবার প্রথমে আপনাকে এই অ্যাপটি https://app.groww.in/v3cO/de51e53d এই লিংক থেকে ডাউনলোড করতে হবে (এই লিংক থেকে অ্যাপটি ডাউনলোড করলে আপনি আপনার ডিম্যাট অক্কোউন্টে ১০০ টাকা পাবেন।)

এর জন্য কি কি লাগবে?

  • PAN কার্ড
  • Aadhar কার্ড (আপনার আধার কার্ডের সাথে অবসসই মোবাইল নম্বর লিংক থাকতে হবে। ভেরিফিকেশনের জন্য OTP দিতে হবে।)
  • ব্যাঙ্ক একাউন্ট

এর পর কি করণীয়?

এই সমস্ত ডকুমেন্ট সাবমিট করে ডিম্যাট একাউন্ট খোলা হয়ে গেলে আপনারা শুরু করতে পারবেন শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ।তাছাড়া এখানে একাউন্ট খোলার আপনারা শেয়ার মার্কেটে ট্রেডিংও ( stock trading ) করতে পারবেন।

শেয়ার মার্কেটে টাকা নিবেশের পূর্বে আপনাদের যে সমস্ত বিষয় গুলি মাথায় রাখা দরকার।

কম টাকা বিনিয়োগ করুন

প্রথম বারেই আপনার জমানো সব পুঁজি শেয়ার বাজারে ইনভেস্ট করে দেবার কোনো দরকার নেই। যেহেতু আপনি নতুন নতুন শেয়ার বাজারে নিবেশ করছেন আপনার উচিত কম কম টাকা নিবেশ করে মার্কেটটিকে বোঝা।এবং তার পর যখন আপনাদের মনে হবে যে আপনারা শেয়ার বাজারে এক্সপার্ট হয়ে গেছেন তখন আপনারা ওখানে বেশি টাকা বিনিয়োগ করতে পারেন।

সমস্ত বিষয় ভেবে সিদ্ধান্ত নিন।

নিবেশ করার পূর্বে কয়েকবার ভেবে তার পর বাজারের কোনো কোম্পানিতে টাকা বিনিয়োগ করবেন। অথবা আপনারা যে কোম্পানির প্রোডাক্ট ব্যাবহার করেন এবং আপনার যে কোম্পানিটি মনে হয় ভালো তাতেই নিবেশ করবেন।

বিনিয়োগ প্রক্রিয়া

প্রাইমারি মার্কেট

প্রাইমারি মার্কেট বলতে প্রধানত আইপিও তে বিনিয়োগ করাকে বলা হয়। এর জন্য আপনাকে আপনারটা ডিম্যাট একাউন্ট-এ গিয়ে দেখতে হবে বর্তমান সময়ে কোন কোন কোম্পানির আইপিও আস্তে চলেছে। এবং ওই কোম্পানির বিসনেস প্ল্যান কে ভালো ভাবে এনালাইসিস করে আপনারা ওই কোম্পানির আইপিওতে নিবেশ করতে পারেন।তার জন্য আপনাকে ওই কোম্পানির আইপিওর জন্য আবেদন করতে হবে। এবং তারপর কোম্পানি সব আইপিও আবেদন গ্রহণ করলে, এটি শেয়ারের চাহিদা এবং প্রাপ্যতার ভিত্তিতে শেয়ার বরাদ্দ করে।

সেকেন্ডারি মার্কেট

সেকেন্ডারি মার্কেট বলতে আমরা সাধারণত স্টক মার্কেটকে বলেথাকি। এই মার্কেটে বিনিয়োগ করা খুব সহজ কিন্তু সাফল্য লাভ করা খুব কঠিন এবং এখানে বিনিয়োগের জন্য আপনাদের প্রয়োজন হবে একটি ট্রেডিং একাউন্ট।

সেকেন্ডের মার্কেটের স্টক আবার দু ধরণের হয় একটি ইকুইটি শেয়ার আরেকটি হলো কমোডিটি শেয়ার।

ইকুইটি শেয়ার

ইকুইটি শেয়ার এ বেচাকেনা আপনাকে একই দিনে আপনাকে করতে হবে অর্থাৎ বাজার শুরু হবার সময় থেকে বাজার বন্ধ হবার আগেই আপনাকে বেচাকেনা করতে হবে অথবা আপনারা long term-এর জন্যেই এই share কিনে রাখতে পারেন।

কমোডিটি শেয়ার

কমোডিটি শেয়ারে আপনি বেচাকেনা আপনার সময় মত যখন খুশি বেচাকেনা করতে পারেন।এবং এর কিছু নির্দিষ্ট ডেট ফিক্স করা থাকে।

বিনিয়োগ করার পূর্বে কি কি দেখা দরকার?

যে কোনো জায়গায় টাকা বিনিয়োগ করার পূর্বে আপনাদের উচিত ভালো ভাবে গবেষণা করা, এবং এটাই শেয়ার বাজারে সফল হবার চাবি কাঠি।

কোম্পানির আর্থিক অবস্থা গবেষণা করা

যে কোনো কোম্পানির শেয়ার-এর দামের ওপর ভরসা করে নিবেশ করবেননা।নিবেশের আগে ওই কোম্পানির বিসনেস প্ল্যান এবং ফিনান্সিয়াল ব্যাকগ্রাউন্ড সম্মন্ধে গবেষণা করে নিবেশ করুন।

সময়কাল ঠিক করা

বিনিয়োগের পূর্বে আপনাকে ঠিক করে নিতে হবে যে আপনি কি Long Term-এর জন্য Invest করবেন নাকি Short Term -এর জন্য।আপনি যদি কম ঝুঁকি চান তাহলে আপনি লং টার্ম-এর জন্য নিবেশ করতে পারেন।

Leave a Reply

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না।